নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ:খাদ্যাভাস ও জীবনযাত্রায় পরিবর্তন - মায়া

নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ:খাদ্যাভাস ও জীবনযাত্রায় পরিবর্তন

আর্টিক্যালটিতে যা থাকছে-

  • নিম্ন রক্তচাপ কী?
  • নিম্ন রক্তচাপের কারণ কী?
  • কখন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন?
  • কি কি খাবার খাবেন?
  • কিভাবে নিম্ন রক্তচাপ এড়িয়ে চলবেন?

নিম্ন রক্তচাপ খুব সাধারণ একটি স্বাস্থ্য সমস্যা। তবে, একে অবহেলা করার মোটেও কোন সুযোগ নেই। অনেকে প্রায়ই এ সমস্যায় ভুগেন কিন্তু কিভাবে নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখবেন তার উপায় সম্পর্কে জানেন না।

মায়ার এক্সপার্টের এ সম্পর্কে কি পরামর্শ বিস্তারিত জানতে পুরো লেখাটি পড়ুন।

নিম্ন রক্তচাপ কী?

নিম্ন রক্তচাপ, যাকে হাইপোটেনশনও বলা হয়, এর অর্থ ভিন্ন ভিন্ন লোকের জন্য আলাদা।

একটি সাধারণ রক্তচাপের মাত্রা হল সাধারণত ৯০/৬০ থেকে ১২০/৮০ মিলিমিটার পারদ ((মিমি ওফ মার্কারি)) এর মধ্যে। তবে এই সীমার বাইরে সংখ্যাগুলিও কারও কারও জন্য ঠিক থাকতে পারে।
আপনার শরীরের জন্য একটি স্বাস্থ্যকর রক্তচাপের মাত্রা আপনার কিছু বিষয়ের উপর নির্ভর করে:

  • চিকিৎসা ইতিহাস
  • বয়স
  • সামগ্রিক অবস্থা

নিম্ন রক্তচাপের কারণ কী?

নিম্ন রক্তচাপের বিভিন্ন কারণ রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

  • অবস্থানের হঠাৎ পরিবর্তন
  • রক্তাল্পতা বা রক্তশুন্যতা
  • স্নায়ুতন্ত্রের কোন ব্যাধি
  • পানিশূন্যতা
  • ডায়েট
  • একবারে বেশি খাওয়া
  • অন্তঃস্রাবজনিত বা অ্যান্ডোক্রাইন ব্যাধি
  • চরম অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়া (এনাফাইলেসিস )
  • প্রচুর রক্ত ক্ষরণ
  • হার্ট অ্যাটাক বা হৃদরোগ
  • লো ব্লাড সুগার
  • নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ
  • গর্ভাবস্থা
  • মারাত্মক সংক্রমণ
  • মানসিক চাপ
  • থাইরয়েডের অবস্থা
  • অতিরিক্ত পরিশ্রম
  • নিউরোলজিক্যাল ডিজিজ যেমন পার্কিনসনস

কখন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন?

আপনার রক্তচাপ যদি ৯০/৬০ মিমি (মিমি ওফ মার্কারি)এর কম হয় এবং আপনার অন্যান্য নিম্নোক্ত লক্ষণ থাকে তবে আপনার ডাক্তার আপনাকে অন্যান্য রোগ সনাক্ত করার জন্য টেস্ট করতে পারেন:

  • ঝাপসা দৃষ্টি
  • বিভ্রান্তি বা মনোনিবেশ সমস্যা
  • মাথা ঘোরা
  • অজ্ঞান হয়ে হাওয়া
  • মাথা ফাঁকা ফাঁকা অনুভব
  • বমি বমি ভাব বা বমি
  • দুর্বলতা

যদি আপনার নিম্নোক্ত উপসর্গগুলো থাকে তবে অবিলম্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিন:

  • নাড়ি স্পন্দন বা পালস রেট বেড়ে গেলে
  • শ্বাস নিতে সমস্যা
  • ঠান্ডা বা ক্ল্যামি ত্বক

কারণ এই উপসর্গগুলি শক সিনড্রোমকে ইঙ্গিত করতে পারে যা একটি মেডিক্যালি জরুরি অবস্থা হিসেবে ধরা হয়।

কি কি খাবার খাবেন?

নির্দিষ্ট ধরণের খাবার খাওয়া আপনার রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে। আপনার লক্ষণগুলি নিরীক্ষণ করুন এবং নিয়মিত আপনার রক্তচাপ পরিমাপ করুন কোনটি কাজ করে তা দেখতে।

খাবার সময় এগুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন:

বেশি তরল পান

ডিহাইড্রেশন রক্তের পরিমাণ হ্রাস করে, যার ফলে রক্তচাপ কমে যায়। অনুশীলনের সময় হাইড্রেটেড থাকা বিশেষত খুব গুরুত্বপূর্ণ।

ভিটামিন বি -১২ যুক্ত খাবার খান

খাবারে ভিটামিন বি -১২ আর ঘাটতি থাকলে একটি নির্দিষ্ট ধরণের রক্তাল্পতা দেখা দিতে পারে, যা নিম্ন রক্তচাপ এবং ক্লান্তি সৃষ্টি করতে পারে। বি -১২ এর পরিমাণ বেশি রয়েছে এমন খাবারের মধ্যে রয়েছে ডিম, ফর্টিফায়েড সিরিয়াল, মাংস ইত্যাদি।

উচ্চ ফোলেট সমৃদ্ধ খাবার

খাবারে ফোলেটের ঘাটতিও রক্তাল্পতায় অবদান রাখতে পারে। ফোলেট সমৃদ্ধ খাবারগুলির উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে অ্যাস্পারাগাস, মটরশুটি, মসুর, কমলা, সবুজ শাক সবজি, ডিম এবং কলিজা।

লবণ

নোনতা খাবার রক্তচাপ খুব দ্রুত বাড়িয়ে দিতে পারে। টিনজাত স্যুপ, স্মোকড মাছ, কটেজ পনির, আচারযুক্ত আইটেম এবং জলপাই খাওয়ার চেষ্টা করুন।

ক্যাফেইন যুক্ত পানীয়

কফি এবং ক্যাফিনেটেড চা অস্থায়ীভাবে কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমকে উদ্দীপিত করে এবং আপনার হৃদ স্পন্দনের হারকে বাড়িয়ে রক্তচাপকে বাড়িয়ে দিতে পারে।

কিভাবে নিম্ন রক্তচাপ এড়িয়ে চলবেন?

আপনার ডায়েটেশিয়ানের পরামর্শ নিয়ে আপনার জন্য উপযোগী খাদ্যতালিকা নির্বাচন করুন।

যদি আপনার সন্দেহ হয় যে আপনার রক্তাল্পতা আছে তবে রক্তাল্পতার ধরণ এবং সর্বোত্তম চিকিত্সার জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না।

এছাড়া আপনার রক্তচাপ বাড়ানোর জন্য আপনার ডায়েটে নিচের কয়েকটি পরিবর্তন করতে পারেন:

ঘন ঘন অল্প করে খাওয়া

বেশি খাবার একবারে খেলে রক্তচাপে আরও নাটকীয় পরিবর্তন সৃষ্টি করতে পারে, কারণ আপনার শরীরকে বেশি খাবার হজম করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হয়।

প্রচুর পানি পান করুন এবং অ্যালকোহল সীমাবদ্ধ করুন

ডিহাইড্রেশনের ফলে রক্তচাপ কমে যায়।

আপনার খাদ্যাভাস পরিবর্তন করার সাথে সাথে, আপনি এই জীবনযাত্রায় কিছু পরিবর্তন করে আপনার রক্তচাপ বাড়িয়ে তুলতে সক্ষম হতে পারেন:

  • আপনি যদি প্রচণ্ড উত্তাপের বাইরে ব্যায়াম বা কাজ করেন তবে ঘন ঘন বিরতি নিন এবং হাইড্রেটেড থাকার জন্য বার বার পানি পান করুন।
  • অনেকক্ষণ রোদে থাকা, হট টাব এবং স্টিম রুমে দীর্ঘ পরিমাণ সময় ব্যয় করা এড়িয়ে চলুন এগুলো ডিহাইড্রেশনের কারণ হতে পারে।
  • ধীরে ধীরে শরীরের অবস্থানগুলি (যেমন দাঁড়ানো) পরিবর্তন করুন।
  • দীর্ঘ সময় বিছানায় বিশ্রাম নেয়া এড়িয়ে চলুন।
  • স্টকিংস পরুন, যা রক্তকে আপনার পা এবং পা থেকে উপরের দিকে এগিয়ে যেতে সহায়তা করে।

অনেক শারীরিক কারণ, বয়স এবং ওষুধ রক্তচাপকে প্রভাবিত করতে পারে। আপনার রক্তচাপ স্তরটি আপনার পক্ষে স্বাস্থ্যকর কিনা তা নিশ্চিত করতে আপনার স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীর কাছ থেকে জেনে নিন।

কিছু খাবার খাওয়া রক্তচাপের স্তরেও প্রভাব ফেলতে পারে।তাই, খাদ্যাভাসের মাধ্যমে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য অবশ্যই পুষ্টিবিদের শরণাপন্ন হবেন।

রেফারেন্স সমূহ

  • Coffee and your blood pressure. (2019).health.harvard.edu/newsletter_article/Coffee_and_your_blood_pressure
  • Eating can cause low blood pressure, from the Harvard Heart Letter. (2020). health.harvard.edu/press_releases/eating-can-cause-low-blood-pressure
  • Hypotension. (n.d.). nhlbi.nih.gov/health/health-topics/topics/hyp/treatment
  • Low blood pressure? Sometimes it’s a cause for worry. (2017).health.clevelandclinic.org/low-blood-pressure-sometimes-cause-worry/
  • Low blood pressure — when blood pressure is too low. (2016).heart.org/en/health-topics/high-blood-pressure/the-facts-about-high-blood-pressure/low-blood-pressure-when-blood-pressure-is-too-low
  • Mayo Clinic Staff. (2019). Caffeine: How does it affect blood pressure?mayoclinic.org/diseases-conditions/high-blood-pressure/expert-answers/blood-pressure/faq-20058543
  • Mayo Clinic Staff. (2020). Low blood pressure (hypotension).mayoclinic.org/diseases-conditions/low-blood-pressure/symptoms-causes/syc-20355465
  • Peng X, et al. (2014). Effect of green tea consumption on blood pressure: A meta-analysis of 13 randomized controlled trials.nature.com/articles/srep06251
  • Potassium lowers blood pressure. (2017).health.harvard.edu/heart-health/potassium-lowers-blood-pressure
  • Vitamin B12 [Fact sheet]. 2020.ods.od.nih.gov/factsheets/VitaminB12-HealthProfessional/

Leave a Reply

Categories