এনার্জি বাড়ানোর ১০টি উপায় তাও ১০ মিনিটে! - মায়া

এনার্জি বাড়ানোর ১০টি উপায় তাও ১০ মিনিটে!

এনার্জি কমে যাওয়ার অভিজ্ঞতা প্রায় সবারই আছে। বিকাল হতেই কি আমাদের চোখ ক্লান্তিতে বুজে আসে।

সারাদিন শেষে কাজের শক্তি ফুরিয়ে আসে আর মনে হয় একটু কফি শপে ঢু মারি, একটু এনার্জি ড্রিংক্স খায় তাহলে হয়ত কাজের শক্তি ফিরে পাব।

চিনি এবং ক্যাফেইন আপনাকে একটি তাৎক্ষণিক পিক-আপ দিতে পারে, কিন্তু পরে দ্রুত আপনার এনার্জি লেভেল ডাউন হয়ে আপনি আরও বেশি ক্লান্তি অনুভব করবেন।

আপনার এনার্জি লেভেল বাড়িয়ে আপনাকে দ্রুত সতেজ এবং পুনরুজ্জীবিত করতে পারে আজকে এমন ১০ টি উপায় নিয়ে আলোচনা করব।

এনার্জি বাড়ানোর ১০টি কৌশল

১। এনার্জি বাড়াতে সকালের নাস্তা

সুস্থ থাকার জন্য সকালে একটি পুষ্টিকর নাস্তার কোন বিকল্প নেই। সকালে পুষ্টিকর নাস্তা আমরা প্রায়ই মিস করি অফিসের তাড়াহুড়াতে।

হয়ত দেরিতে ঘুম থেকে উঠে কেউ কেউ একবারে দুপুরের খাবার খান। কিন্তু এটা করা যাবে না।

গবেষণা বলছে যারা পুষ্টিকর নাস্তা করে তারা দিন শেষে কম ক্লান্তিতে ভুগে।

নাস্তায় আঁশযুক্ত অট্মিল বা লাল আটার রুটি রাখতে পারেন, সাথে রাখতে পারেন সবজি এবং ডিম।

পুষ্টিকর নাস্তা খেলে অনেকক্ষণ আপনার ক্ষুধা লাগবে না। আর ক্ষুধা থেকেই কিন্তু ক্লান্তির সুত্রপাত হয়।

২। যোগব্যায়াম

কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, যোগব্যায়াম, মেডিটেশন, শ্বাসপ্রশ্বাসের ব্যায়াম আপনার ক্লান্তি দূর করতে সহায়তা করে। তাই, প্রতিদিন এগুলো করতে পারেন।

৩।গান শোনা বা গান গাওয়া

গান গাওয়া আপনাকে এক ধরনের মানসিক প্রশান্তি দেয় এবং আপনার শরীরে স্ট্রেস হরমোনের মাত্রা কমিয়ে দিতে সহায়তা করে।

নিজের কণ্ঠস্বর নিয়ে আপনি বিভ্রান্ত থাকলে অথবা কর্মক্ষেত্রে থাকলে বাথরুমে গিয়ে দুইলাইন গেয়ে আসতে পারেন।

এটা আপনাকে মানসিক প্রশান্তির পাশাপাশি কাজে মোটিভেট করতেও সহায়তা করতে পারে।

৪। পর্যাপ্ত পানি পান করুন

ক্লান্তি অনুভব করার আরেকটি অন্যতম কারণ হল ডি-হাইড্রেশন।গবেষণায় দেখা গিয়েছে ডিহাইড্রেশন কিংবা পানিশুন্যতায় আপনার ক্লান্তি বেড়ে যায়।

আপনি কখন বুঝবেন আপনি পানিশূন্যতায় ভুগছেন? আপনার যদি গলা শুকিয়ে আসে, আপনার প্রসাব যদি হলুদ হয় তখন বুঝবেন আপনি পানিশুন্যতায় ভুগছেন।

হাইড্রেটেড থাকতে আপনি প্রতি ঘণ্টা বা কাজের ফাঁকে ডেস্ক থেকে উঠে গিয়ে হালকা হেটে একটু পানি খেয়ে নিতে পারেন।

হাঁটার ফলে কাজের একঘেয়েমি দূর হল আবার আপনার পানির চাহিদাও পূরণ হল।

৫। বাদাম খাওয়া

হালকা ক্ষুধায় এক মুঠো বাদাম খেতে পারেন, যা উচ্চ ম্যাগনেসিয়াম এবং ফোলেট (ফলিক এসিড) সমৃদ্ধ।

এর পুষ্টিউপাদান শক্তি এবং নতুন কোষ উৎপাদনের জন্য অপরিহার্য। আর পুষ্টির অভাব আপনাকে ক্লান্ত করে দিতে পারে।

বাদাম আপনাকে তড়িৎ গতিতে শক্তি সঞ্চার করতে সহায়তা করে।

৬। সুগন্ধি

দারচিনি এবং পুদিনা পাতা মিষ্টি সুগন্ধি কিছু মানুষের জন্য ক্লান্তি দূরিকারক হিসেবে কাজ করে।

এককাপ রং চা দারচিনি ও পুদিনা পাতা দিয়ে আপনার ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করবে।

তবে, এই সুগন্ধি আসলে একজন ব্যক্তির শক্তির স্তরকে প্রভাবিত করে কিনা এবং কিভাবে এই সুগন্ধি প্রকৃতপক্ষে কোন ব্যক্তির শক্তির স্তরকে প্রভাবিত করে কিনা তা দেখার জন্য আরো গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে।

৭। এনার্জি বাড়াতে শরীরচর্চা

শরীরচর্চা একটি প্রাকৃতিক এনার্জি বুস্টার, কারণ যখনই আপনি ব্যায়াম করেন, অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত আপনার হৃৎপিণ্ড,পেশী এবং মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে।

অল্প করে হলেও শরীরচর্চা ক্রুন নিয়মিত। প্রতিদিন ১০ মিনিট দিয়ে শুরু ক্রুন তারপর ধীরে ধীরে সময় বাড়ানোর চেষ্টা ক্রুন।

এমনকি, আপনি যখন ফোনে কথা বলছেন তখন হাটতে হাটতে কথা বলতে পারেন।

মোটকথা হল, শরীরের মুভমেন্ট বজায় রাখুন।এটি আপনার এনার্জি লেভেল বাড়াতে সহায়তা করবে।

৮। সূর্যের আলো গায়ে লাগানো

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, প্রতিদিন বাইরে কয়েক মিনিট রোদে থাকুন এতে আপনার মেজাজ ভালো থাকবে,স্মৃতি শক্তি বাড়াবে এবং তথ্য ধারণ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে।

বাইরে যেতে না পারলে অন্তত জানালা খুলে দিন বা বারান্দায় বসুন গায়ে রোদ লাগান।তবে, অতিরিক্ত রোদ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।

৯। হালকা খাবার

আপনার মস্তিষ্কের সর্বোত্তম কাজ করার জন্য জ্বালানী প্রয়োজন। যখন আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা কমে যাবে, আপনার কাজ করার ক্ষমতা কমে যাবে এবং আপনি ক্লান্তি অনুভব করবেন।

তাই যদি আপনার মস্তিষ্ক কাজ করার ক্ষমতা কমে যায় , তখন এমন একটি স্নাক্স খান যা আপনাকে বিকেলের বাকি সময় পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট শক্তি দেবে।

স্ন্যাকস হতে পারে প্রোটিন ও হালকা কার্ব সমৃদ্ধ খাবার খান — যেমন পিনাট বাটার সঙ্গে কলা টুকরা, অথবা ফলমূল ইত্যাদি যা দীর্ঘমেয়াদে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রাখার জন্য ভাল।

আপনি চাইলে চা কফিও খেতে পারেন এতে একঘেয়েমি দূর হবে পাশাপাশি হালকা এনার্জিও পাবেন। তবে, অবশ্যই সীমিত পরিমাণে।

১০। এনার্জেটিক বন্ধু বা সঙ্গীর সাথে আড্ডা দেওয়া

আবেগ আশ্চর্যজনকভাবে সংক্রামক। যারা ক্রমাগত নেতিবাচক চিন্তাভাবনা করেন এবং ক্লান্ত থাকেন তারা আপনার মানসিক শক্তি নষ্ট করতে পারে।

অন্যদিকে, যারা সবসময় আনন্দে থাকে এবং একটিভ থাকে তারা আপনাকে একটি সত্যিকারের লিফট দিতে পারে।

এনার্জি না থাকলে কাজে মনযোগী হওয়া যেমন কঠিন তেমনি কাজের সঠিক ফলাফল পাওয়াও দুষ্কর।তাই, স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গড়ে তুলুন।

স্বাস্থ্যসংক্রান্ত নানাবিষয়ে জানতে আমাদের ব্লগটি পড়ুন। শারীরিক ও মানসিক যেকোন স্বাস্থ্য সমস্যায় মায়া অ্যাপটি ইন্সটল করে প্রশ্ন ক্রুন এবং এক্সপার্টের পরামর্শ নিন।

Leave a Reply

Categories