বেয়ারড অয়েল কি? দাড়ির যত্নে এটি ব্যবহারের সুবিধা ও ব্যবহারবিধি - মায়া

বেয়ারড অয়েল কি? দাড়ির যত্নে এটি ব্যবহারের সুবিধা ও ব্যবহারবিধি

বেয়ারড অয়েল দাড়িকে ময়শ্চারাইজ ও মসৃণ করতে ব্যবহৃত হয়। দাড়িকে অনেকেই পুরুষত্বের অনুষঙ্গ ভাবেন। আজকাল বিভিন্ন স্টাইলের দাড়ি রাখার একটি ট্রেন্ড চালু হয়েছে।

দাড়ির নিচে আপনার ত্বককেও ময়শ্চারাইজ করতে এবং দাড়ি নরম, ঘন ও পরিপাটি রাখতে এই তেলের জুড়ি নেই।   

মায়ার এক্সপার্টের থেকে বেয়ারড ওয়েল এর উপকারিতা এবং ব্যবহার বিধি জানতে পুরো লেখাটি পড়ুন।

বেয়ারড অয়েল কেন ব্যবহার করবেন?

রুক্ষ দাড়িকে পোষ মানাতে

অবাধ্য দাড়ির কারণে স্টাইল করতে না পারার আক্ষেপ থাকে অনেকেরই। কারণ, দাড়ির চুল আপনার মাথার চুলের চেয়ে গঠনে রুক্ষ হয়।

বেয়ারড অয়েল দাড়িকে নরম এবং উজ্জ্বল করে। ফলে, আপনি আপনার এলোমেলো ও অবাধ্য দাড়িগুলোকে সুন্দরভাবে গুছিয়ে রাখতে পারবেন।

মনের মত নানা রকম স্টাইল করতেও আর কোন বাঁধা থাকবে না।   

দাড়ির নিচের ত্বক ময়শ্চারাইজ করে

বেয়ারড ওয়েল আপনার দাড়ির নিচে ত্বককে ময়শ্চারাইজ ও নরম করে।

ফলে, দাড়িতে খুশকি এবং চুলকানির সমস্যা কমে যায়।

দাড়ি ঘন দেখায়

এলোমেলো, নোংরা ও আঁকাবাঁকা দাড়িকে নরম ও স্নিগ্ধ করতে বেয়ারড অয়েলের কোন জুড়ি নেই।

এর ফলে, আপনার দাড়িতে অনেকটা ফোলা ফোলা ভাব আসে এবং ঘন দেখায়। এজন্য, অনেকের ধারণা এটি দাড়িকে ঘন করে।

সুঘ্রাণ

অনেক রকম সুঘ্রাণ যুক্ত বেয়ারড অয়েল বাজারে পাওয়া যায়। এটি ব্যবহারে আপনার দাড়ি থেকে একটি মিষ্টি সুঘ্রাণ আসবে।

বেয়ারড অয়েলের ব্যবহারবিধি

বেয়ারড অয়েল ব্যবহার করার সর্বোত্তম সময় হ’ল গোসল এবং দাড়ি শ্যাম্পু করার পরে। আপনার মুখ ধোয়ার পরেও এটি ব্যবহার করতে পারেন ।

আপনার ত্বকের পোরস গুলো যখন উন্মুক্ত থাকে তখন এই তেল সহজেই ত্বক শোষণ করে নিতে পারে। 

আপনি প্রতিদিন বা একদিন পর পর বেয়ারড অয়েল ব্যবহার করে দেখতে পারেন। 

এই তেল ব্যবহার করার সময়, আপনি প্রয়োজনীয় পরিমাণে ব্যবহার করবেন। বেশি পরিমাণে ব্যবহার করলে উল্টো আপনার দাড়ি তেল চিটচিটে এবং কম ঘন মনে হবে।

এটি ব্যবহারের কিছু টিপস নিম্নরূপ:  

  • আপনার হাতের তালুতে তিন থেকে পাঁচ ফোঁটা বেয়ারড অয়েল নিন এবং এটি আপনার পুরো দাড়িতে উপর থেকে নিচের দিকে ম্যাসেজ করুন। দাড়ি রুক্ষ মনে হলে এমন করবেন তবে অতিরিক্ত তেল দিয়ে দাড়ি ভিজিয়ে ফেলবেন না। 
  • এটি আপনার পুরো দাড়িতে ব্যবহার করুন। 
  • লম্বা বা ঘন দাড়ির ক্ষেত্রে তেল সমানভাবে বিতরণ নিশ্চিত করার জন্য একটি চিরুনি ব্যবহার করুন।  
  • দীর্ঘ, ঘন দাড়ি জন্য আপনার পরিমাণে বেশি তেল লাগতে পারে।
  • ইচ্ছেমত স্টাইল করুন। 

এখানে উল্লেখ্য যে, বেয়ারড অয়েলের মত বেয়ারড বাম ও পাওয়া যায় বাজারে। যা জেল বা ক্রিমি ফরম্যাটে থাকে। দুটির কাজ ও গুণাগুণ একই। আপনি তেলের মতই এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

লাইফস্টাইল সংক্রান্ত যেকোন বিষয়ে সঠিক তথ্য জানতে মায়া অ্যাপটি ইন্সটল করুন এবং প্রশ্ন করুন। বিনামুল্যে এক্সপার্টের পরামর্শ জেনে নিন।  

Leave a Reply

Categories