করোনাকালীন সময়ে ৫ মাস থেকে ৬ বছর বয়সী শিশুর পুষ্টি পরামর্শ - মায়া

করোনাকালীন সময়ে ৫ মাস থেকে ৬ বছর বয়সী শিশুর পুষ্টি পরামর্শ

বাচ্চার খাওয়া নিয়ে মায়েরা সব সময়ই দুঃশ্চিন্তায় ভুগে থাকেন। বাচ্চাকে কি খাওয়ালে বাচ্চা সঠিক পুষ্টি পাবে এ সংক্রান্ত নানা প্রশ্ন আমরা মায়ার প্লাটফর্মে পেয়ে থাকি। করোনা কালীন এ সময়ে শিশুকে কি খাবার দিলে বাচ্চার পুষ্টি চাহিদা পুরণের পাশাপাশি তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি ও পাবে এ সংক্রান্ত বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফ  এর দিক নির্দেশনা নিচে বর্ণিত হল- 

  • শিশুর প্রতিদিনের খাবারে পর্যাপ্ত পরিমাণ “ভিটামিন সি” সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। পেয়ারা, আমলকী, আমড়া, জাম্বুরা, মিষ্টি আলু, টমেটো ইত্যাদি সহ মৌসুমি ফলমূল ও রঙ্গিন শাকসবজি (দিনে কমপক্ষে একধরণের ফল ও দুইধরণের শাকসবজি খেতে দিন)। 
  • লকডাউনের কারণে তাজা শাকসবজি, ফলমূল সহজলভ্য না হলে বিকল্প পুষ্টিকর খাবার যেমন- লাল আটার রুটি, লাল চালের ভাত, ভিন্ন ভিন্ন রকমের ডাল, বাদাম মিশ্রণ ইত্যাদি বেছে নিন।
  • প্রক্রিয়াজাত খাবার (চিপস, চানাচুর), বোতলজাতীয় পানীয়, কৃত্রিম জুস, অতিরিক্ত লবণ, চিনি ও চর্বি যুক্ত খাবার এবং ফাস্টফুড দেয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • সম্ভব হলে সাদা চিনির পরিবর্তে গুড় বা লাল চিনির দিন। 
  • শিশুর দৈনিক খাবারে অন্তত এক ধরনের প্রাণিজ প্রোটিন(যেমন- ডিম, মাছ, মাংস) রাখুন এবং সুসিদ্ধ করে রান্না করুন। 
  • শিশুর জন্য রান্না করে ঘরোয়া খাবারে আয়ডিনযুক্ত লবণ, সামান্য হলুদ, আদা, রসুন এবং জিরা ব্যবহার করুন।        
  • রান্নার আগে ও শিশুকে খাওয়ানোর পূর্বে নিজের ও শিশুর হাত সাবান পানি দিয়ে ২০ সেকেন্ড ধরে ধুয়ে নিন। রান্নার স্থান, শিশুর ব্যবহৃত আলাদা থালাবাসন, গ্লাস, চামচ ইত্যাদি সাবান, পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। 
  • শিশুকে কমপক্ষে ১ ঘণ্টা খেলাধুলা এবং সম্ভব হলে ১৫-২০ মিনিট রোদে থাকতে দিন।
  • শিশু অসুস্থ হলে বুকের দুধের পাশাপাশি স্বাভাবিক খাবার ও পানীয় বারে বারে দিন এবং সুস্থ হওয়ার পরে খাবারের পরিমাণ একটু বাড়িয়ে দিন। 

কিছু পুষ্টিকর  শিশু খাদ্যের রেসিপি  

সবজি খিচুড়ি

উপকরণ 

চাল, ডাল, ভাজা মটরশুঁটি, বাদাম গুড়ো, গাজর(অপশনাল), পালং শাক, তেল, পেয়াজ, আদা, রসুন, হলুদ, লবণ ও পানি পরিমাণমত। 

প্রস্তুত প্রণালী 

  • পাত্রে তেল গরম হলে তাতে পেয়াজ কুচি, আদা, রসুন,হলুদ দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন। 
  • এরপর পরিষ্কার ভাবে ধোঁয়া চাল, ডাল, বাদাম গুড়ো বা বাটা দিন।
  • ২-১ মিনিট ভাল করে মিশিয়ে নেড়ে নিন। পানি মিশিয়ে পাত্র ঢেকে দিন।
  • চাল, ডাল আধা সিদ্ধ হলে ভালো করে ধুয়ে রাখা সবজি দিয়ে দিন। সব উপাদান ভালো মত সিদ্ধ হলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।    

ডিম সুজি 

উপকরণ

ডিম, সুজি, গুড়, গাজর(অপশনাল), তেল, পানি। 

প্রস্তুত প্রণালী 

  • পাত্র গরম হলে সুজি দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে হালকা ভেজে নিন। 
  • এরপর পানি দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। ভালো করে ধোঁয়া গাজর মিশিয়ে দিন।
  •  চুলার আঁচ কমিয়ে দিয়ে ঢেকে রান্না করুন। ফুটে উঠলে ডিম ভালো করে মিশিয়ে দিন।
  • এরপর তেল ও গুড় যোগ করুন। রান্না হয়ে আসলে নামিয়ে পরিবেশন করুন। 

সুজির হালুয়া 

উপকরণ

দুধ, সুজি, গাজর(অপশনাল), চিনি, নারিকেল 

প্রস্তুত প্রণালী 

  • পাত্র গরম হলে সুজি দিয়ে কিছুক্ষণ নেড়ে হালকা ভেজে নিন। 
  • সুজি সোনালী রং ধারণ করলে এতে দুধ ও গাজর মেশান। 
  • ভালো করে ফুটান এবং চিনি মিশিয়ে অনবরত নাড়ুন। খেয়াল রাখুন যেন নিচে লেগে না যায়।
  • নারিকেল মিশিয়ে হালুয়া পাত্রের গা  ছেড়ে আসলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।  

তবে, এক্ষেত্রে মায়ার ডাক্তারের মতে, শিশুকে কোন নতুন খাবার তা যতই পুষ্টিকর হোক না কেন দেবার পূর্বে  অবশ্যই অল্প পরিমাণে দিয়ে খেয়াল করে দেখুন কোন এলার্জিক ইফেক্ট হয় কিনা। যদি না হয় তবে পরিমাণে বাড়িয়ে খেয়াল করে দেখুন। এরপর নিশ্চিত হয়ে শিশুর খাবারে ব্যবহার করুন। অ্যালার্জি থাকলে ঐ খাবার দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। গাজর, গুড় যদি আপনার শিশুর হজমে ব্যাঘাত ঘটায় তবে তা বাদ দিতে পারেন। আপনার শিশুর পুষ্টি সংক্রান্ত যে কোন প্রশ্নের উওর জানতে মায়াতে প্রশ্ন করুন, নিশ্চিন্ত থাকুন।  

তথ্যসূত্র 

https://www.who.int/bangladesh/emergencies/coronavirus-disease-(covid-19)-update/nutrition-advice-for-adults-during-covid-19-outbreak

Leave a Reply