নিজেকে ভাল রাখতে প্রতিদিন হাসুন - মায়া

নিজেকে ভাল রাখতে প্রতিদিন হাসুন

COVID-19 সংক্রমণ এড়াতে আমরা যতটা সম্ভব নিজেকে সুস্থ রাখার উপায়গুলি অনুসন্ধান করার চেষ্টা করছি। আপনি সম্ভবত ইতিমধ্যে জানেন যে সুস্থ-সুষম এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া,  ব্যায়াম করা, বিশ্রাম নেওয়া, যোগব্যায়াম অথবা মেডিটেশন এগুলো অভ্যাস আপনার মানসিক চাপ কমানোর পাশাপাশি আপনার রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা ভালভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা করবে।

তবে আমি এর সাথে আরও একটি বিষয় যোগ করতে চাই – হাসি। প্রতিদিন কয়েক মিনিটের জন্য হলেও হাসুন। আমরা এমন একটি পরিস্থিতির মধ্যে সময় পার করছি যেখানে হাসি বিষয়টি ভুলে আমরা আতঙ্ক গ্রস্থ হয়ে পড়ছি। মায়াতে প্রতিদিন প্রায় ১২০০ গ্রাহক মনো-সামাজিক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিচ্ছেন।

সমসাময়িক পরিস্থিতিতে আমরা এখন অনেকেই বাসা থেকে অফিসের কাজ করছি। পাশাপাশি আমাদের নিয়োজিত সাহায্যকারীদেরকে ও অনেকেই ছুটিতে পাঠিয়ে দিয়েছি ফলে ঘরের সমস্ত কাজ ও আমাদের নিজেদের ই করতে হচ্ছে। সারাদিন অনেকটা সময় আমরা খবরের কাগজ পড়ে, খবর শুনে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যয় করছি। যার ফলে মানসিক ভাবে আমরা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছি। 

এর মাঝেও কিছু সময় নিজেদের জন্য ব্যয় করা শুধু কঠিন দিনগুলিকে সহজ করে তোলে তা নয়। হাসি স্বাস্থ্যের জন্যেও দারুন উপকারী। এর স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী কিছু সুবিধা রয়েছে।  

স্বল্পমেয়াদী সুবিধা:

  • স্ট্রেস কমানো: এমন কিছু প্রমাণ রয়েছে যে, আমরা যখন হাসি তখন আমাদের মস্তিস্কে এন্ডোরফিন নিঃসরিত হয় যা আমাদের ইতিবাচক চিন্তাভাবনাকে বিকশিত করতে সহায়তা করে। এমনকি হাসাহাসি বন্ধ করার পরও এর প্রভাব থাকে। 
  • পেশী উত্তেজনা হ্রাস: হাসি পেশী শিথিল করতে এবং উত্তেজনাপূর্ণ পেশীগুলি আক্ষরিকভাবে আলগা করতে আমাদের সহায়তা করতে পারে।
  • হার্ট স্বাস্থ্য: আমাদের হার্ট বিটের হার এবং রক্তসঞ্চালন একটি ভাল হাসির সাথে সাথে বেড়ে যায় এবং তারপরে যখন আমরা হাসি বন্ধ করি – এটি আমাদের স্ট্রেস তৈরির প্রক্রিয়াটিকে বাধাগ্রস্থ করে।

দীর্ঘমেয়াদী সুবিধা:

  • জেরিয়াট্রিক্স, ক্যান্সার যত্ন, মনো চিকিৎসা ইত্যাদি নানা ক্ষেত্রে গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে নিরাময় এবং স্বাস্থ্যের উন্নতিতে হাসি উপকার দেয়।
  • এমন কিছু তথ্যপ্রমাণ রয়েছে যাতে বলা হয়েছে, আপনার মানসিক চাপ কম থাকলে এটি দীর্ঘস্থায়ীভাবে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।
  • হতাশা এবং উদ্বেগের মতো মানসিক সমস্যা গুলো হাসির মাধ্যমে কমিয়ে আনা সম্ভব। 

সুতরাং দেখা যাচ্ছে, হাসি খুব ভাল একটি ওষুধ। সুতরাং, ব্যায়াম, পুষ্টিকর খাবার, ঘুমের পাশাপাশি হাসার জন্যও কিছু সময় নির্বাচন করুন। 

হাসির একটি দৈনিক ডোজ প্রবর্তন করার সুবিধা হল এর কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই, আপনি অতিরিক্ত পরিমাণে গ্রহণ করতে পারবেন এবং এখনও অবধি হাসির কারণে কোন অ্যালার্জিরও সন্ধান পাওয়া যায় নি। 

প্রতিদিন কিছু সময় পরিবারের সাথে হাসিহাসি এবং উপভোগ করে কাটান । এতে আপনার পরিবারের সদস্যরা যখন পিছনের স্মৃতি খুঁজে দেখবে তখন যেন বুঝতে পারে এমন একটি অনিশ্চিত ও মহামারীর সময়েও তারা সময় গুলো উপভোগ করেছিল এবং হাসির কারণ খুঁজে পেয়েছিল। এটি আপনার পারিবারিক সম্পর্কগুলো মজবুত করতে সাহায্য করবে।

Leave a Reply