করোনায় ডায়াবেটিস রোগীদের করণীয় সম্পর্কে একজন ডাক্তারের পরামর্শ - মায়া

করোনায় ডায়াবেটিস রোগীদের করণীয় সম্পর্কে একজন ডাক্তারের পরামর্শ

COVID-19 সংক্রমণের সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছেন যারা তাদের মধ্যে অন্যতম হল ডায়াবেটিস রোগীরা।এ সময় আপনার রক্তের সুগার লেবেল নিয়ন্ত্রনে রাখা অত্যন্ত জরুরী। যেহেতু এ সময় বাইরে বের হওয়া মোটেও আপনার জন্য উচিৎ হবে না তাই আপনার ডাক্তারের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা যাবে কিনা তা জেনে নিন। আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ঠিক রাখতে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ খুব জরুরী। 

ডায়াবেটিস রোগীদের সুস্থতার বিষয়টি নিয়ে মায়ার একজন ডাক্তার,  ডাঃ তানজিনা শারমিন এর কিছু পরামর্শ:

নিয়মিত ব্লাড সুগার পরীক্ষা: অন্যান্য সময়ের মত এখনও একজন ডায়াবেটিস রোগীকে নিয়মিতভাবে ব্লাড সুগার পরীক্ষা করে নিতে হবে এবং তালিকা রাখতে হবে। 

প্রতিদিনের ঔষধ মজুদে রাখুন: যেহেতু আপনার ঘর থেকে বের হওয়া একেবারেই উচিৎ হবে না, তাই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী কয়েকদিনের ঔষধ মজুদে রাখুন। ফুরিয়ে গেলে বা জরুরী প্রয়োজনে পরিবারের অন্য সদস্যদের সহায়তায় ঔষধ আনিয়ে নিন। যত কম বাইরে বের হওয়া যায় ততই ভালো এবং নিয়মিত ঔষধ সেবন বা ইনসুলিন ডাক্তারের পরামর্শ মত গ্রহন করুন। 

যোগাযোগ রাখুন: আপনার মানসিক স্বাস্থ্য ভাল রাখতে পরিবার বা আত্মীয়স্বজনের সাথে মোবাইলে বা অনলাইনে যোগাযোগ রাখুন। 

খাদ্যদ্রব্য মজুদ: যেহেতু এ সময় আপনি বাজারে যেতে পারবেন না তাই প্রয়োজন অনুযায়ী বুঝে শুনে প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য নিজের মজুদে রাখুন। ফুরিয়ে গেলে পরিবারের অন্যান্য সদস্য বা প্রতিবেশীদের সহায়তা নিন। শাক সবজি, ফলমূল ভালভাবে ধুয়ে খান। এবং ডিম, মাছ, মাংস ভাল মত সিদ্ধ করে রান্না করে খান। 

পর্যাপ্ত কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ: আপনার ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য আবার কার্বোহাইড্রেট খাওয়া একেবারে ছেড়ে দিবেন না, আপনার জন্য উপযুক্ত খাবার তালিকা গ্রহন করুন। সহজপাচ্য বা ফাইবার সমৃদ্ধ পর্যাপ্ত কার্বোহাইড্রেট ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে।  

খাবারের একঘেয়েমি দূর করতে খাবারে বৈচিত্র্য আনুন: যেহেতু মজুদ পণ্য থেকে খাবার তৈরী করবেন সেহেতু খাবারে একঘেয়েমি আসাটা স্বাভাবিক। এ সমস্যা দূর করতে একই খাবার ভিন্নভাবে তৈরী করে খেতে পারেন। এতে স্বাদে বৈচিত্র্য আসবে।   খাবার তালিকায় ফলমূল, শাক-সবজি পর্যাপ্ত রাখুন।

নিয়মিত শরীরচর্চা: যেহেতু ডায়াবেটিস রোগী তার প্রতিদিনের নিয়মে বাইরে হাটাহাটি বা ব্যায়ামাগারে যেয়ে শরীরচর্চা করতে পারছেন না সেহেতু ঘরের ভিতরেই অন্তত ৩০ মিনিট হাটুন বা ব্যায়াম করতে পারেন। এতে আপনার ব্লাড সুগার যেমন নিয়ন্ত্রণে থাকবে, তেমনি মানসিক ভাবেও আপনি ভাল বোধ করবেন। ঘরে বসে ব্যায়াম করার জন্য আপনি অনলাইনে বিভিন্ন ভিডিও পেয়ে যাবেন। ঘরে থাকলেও সময়গুলোকে এভাবে ঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারেন।

পর্যাপ্ত ঘুম: সুস্থ থাকতে পর্যাপ্ত ঘুমের কোন বিকল্প নেই। তাই একটানা খবরের কাগজ, টিভি বা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চোখ না রেখে চোখ কে একটু বিরতি দিন। আপনার প্রিয় কাজগুলো যেমন: বই পড়া, প্রার্থনা করা, গান শোনা ইত্যাদি করে দেখতে পারেন। এতে আপনার উদ্বিগ্নতা কমবে, মন ভাল থাকবে এবং ঘুম ও ভাল হবে। 

নিজেকে আপডেটেড রাখুন: খবর খুব বেশি পরিমাণে না দেখে নির্ভরযোগ্য মাধ্যমে দেখুন এবং আপনার আশেপাশের তথ্য সম্পর্কে অবগত থাকুন। যেহেতু এই রোগ একেবারেই নতুন তাই নানা সময় নানা রকম তথ্য আপনি জানতে পারবেন। 

যেহেতু, আপনার কো-মরবিটি আছে তাই অবশ্যই উপরোক্ত নির্দেশনা গুলো ছাড়াও আপনার ডাক্তার প্রদত্ত নির্দেশনাগুলো মেনে চলুন। একান্ত প্রয়োজনে বাইরে যেতে হলে মাস্ক পরে এবং ৬ ফিট সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বের হন। যত দ্রুত সম্ভব কাজ সেরে ঘরে ফিরে নিজের পোশাক সবান পানি দিয়ে ধুয়ে নিন এবং হাত মুখ ধুয়ে নিন। প্রয়োজনে গোসল করে ফেলুন। অবশ্যই বারবার ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুতে ভুলবেন না। সাবান না হলে ৬০% অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত জীবাণুমুক্ত করবেন। অপরিস্কার হাতে নাক, মুখ, চোখে হাত দেওয়া থেকে বিরত থাকবেন।

আপনার শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে নিজেকে আইসলেশনে রেখে আই ই ডি সি আর এর হটলাইন নাম্বারে যোগাযোগ করবেন। শরীরিক অন্যান্য অসুবিধায় মায়ার ডিজিটাল প্রেসক্রিপশনের মাধ্যমে প্রশ্ন করে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।আপনার শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সেবায় মায়া আপনার পাশেই আছে।       

Leave a Reply