অর্থনৈতিক মন্দায় মানসিক চাপ কমানোর উপায় - মায়া

অর্থনৈতিক মন্দায় মানসিক চাপ কমানোর উপায়

মূলকথা:

  • অর্থনৈতিক অবস্থার সাথে মানসিক চাপের সম্পর্ক ওতপ্রোত। 
  • সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার মাধ্যমে আর্থিক ও মানসিক চাপ প্রশমন সম্ভব। 
  • নিজেকে দক্ষ ও প্রস্তুত করতে হবে সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য। 
  • জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনতে হবে। 

গোটা বিশ্ব আজ নিশ্চিত অর্থনৈতিক মন্দার দিকে এগিয়ে চলেছে। শেয়ার বাজারে ধ্বস নেমেছে অনেক স্থানে। অনেক ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠান আজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশ ও এধরনের অবস্থার মধ্যে পড়তে পারে। অনেক কলকারখানা শ্রমিক বহুল হওয়ায় সেখানের শ্রমিকরা অনেক বড় স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠানেই বাড়ি থেকে কাজ করার মত সুবিধা উপলব্ধ নয়। কোন সন্দেহ নেই যে এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই অর্থনৈতিক ও মানসিক চাপের মধ্যে রয়েছেন।

এমতাবস্থায় কিভাবে আপনি আপনার অর্থ ও অর্থসংক্রান্ত মানসিক চাপ কমাবেন তার জন্য কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছেন এ পি এ। চলুন জেনে নেই কিছু টিপস-  

বিরতি নিন কিন্তু আতঙ্কিত হবেন না: আমরা  অর্থনীতির অবস্থা নিয়ে সংবাদপত্র এবং টেলিভিশনে অনেক নেতিবাচক ঘটনা দেখছি। আপনার চারপাশে কী ঘটছে সেদিকে মনোযোগী হন, কিন্তু  বিভ্রান্ত হওয়া থেকে বিরত থাকুন, কারণ এগুলো আপনাকে উচ্চ স্তরের উদ্বেগ এবং খারাপ সিদ্ধান্ত গ্রহণের দিকে নিয়ে যেতে পারে। অত্যধিক প্রতিক্রিয়া বা প্যাসিভ হওয়ার প্রবণতা এড়িয়ে চলুন। শান্ত থাকুন এবং মনযোগী হয়ে কাজ করুন। 

আপনার আর্থিক ঘাটতির স্থানগুলো শনাক্ত করুন এবং একটি পরিকল্পনা তৈরী করুন: বিশেষ অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে কি কি বিষয়গুলো আপনার স্ট্রেস বাড়ার কারণ হতে পারে তা নির্ণয় করুন।  আপনি এবং আপনার পরিবারের সদস্যরা মিলে কিভাবে ব্যয় হ্রাস করা যায় অথবা একটি সুনির্দিষ্ট অর্থ পরিকল্পনা করুন  এবং সে মোতাবেক চলার জন্য নিজেরা সংকল্প গ্রহণ করুন এবং নিয়মিত যাচাই বাছাই করুন। যদিও এটি স্বল্পমেয়াদে আপনার উদ্বেগ-উদ্দীপনা সৃষ্টি করতে পারে কিন্তু পরিকল্পনায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকলে ভবিষ্যতে এটি আপনার অর্থনৈতিক চাপ হ্রাস করতে ভুমিকা রাখবে। আপনি যদি কোন বিল পরিশোধে অপারগ হন তবে সে বিষয়ে আপনার ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করুন।   

আর্থিক চাপ মোকাবেলায় কি করবেন সে বিষয়ে সচেতন হন: কঠোর অর্থনৈতিক সময়ে কিছু লোক ধূমপান, মদ্যপান, জুয়া বা আবেগ তাড়িত হয়ে বেশী খাওয়ার মতো অস্বাস্থ্যকর ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে তাদের মানসিক চাপ কমানোর চেষ্টা করে। এসব বিষয় স্ট্রেস কমানোর পরিবর্তে অংশীদারদের মধ্যে আরও দ্বন্দ্ব এবং তর্ক সৃষ্টি করতে পারে। এই আচরণগুলির বিষয়ে সতর্ক থাকুন – যদি এসব ব্যাপার আপনার মানসিক সমস্যা সৃষ্টি করে তবে সমস্যাটি আরও খারাপ হওয়ার আগেই একজন মনোবিজ্ঞানীর পরামর্শ নিন। 

পরিস্থিতি থেকে সুযোগ খুঁজুন সত্যিকারের প্রবৃদ্ধির জন্য: এমন পরিস্থিতিতেও আপনার সুযোগ আসবে অবস্থা পরিবর্তনের।অর্থনৈতিক মন্দার ভেতরেও আপনি আপনার মানসিক চাপ কমানোর স্বাস্থ্যকর উপায় খুঁজে পেতে পারেন।হাটার মত সহজ ও ব্যায়হীন ব্যায়ামগুলো করুন। আপনার পরিবারের সাথে বাড়িতে রাতের খাবার খান যা কেবল আপনার অর্থ সাশ্রয়ই করবে না,আপনার পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করতে সহায়তা করবে। এই সময়টাকে অলস পার না করে নিজের দক্ষতা বাড়ানোর জন্য কম খরচে বা ফ্রিতে কিছু শিখুন যা আপনাকে পরবর্তীতে নতুন চাকরি পেতে সহায়তা করবে। গতানুগতিক চিন্তা থেকে বেরিয়ে জীবন পরিচালনার নতুন পন্থা আবিস্কার করুন।  

বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন: বড় প্রতিষ্ঠানের মালিকরা সামর্থ অনুযায়ী প্রয়োজনে কোন অর্থবিদের পরামর্শ গ্রহণ করতে পারেন। সর্বোপরি, মানসিক চাপ কমাতে একজন মনোবিদের সহযোগিতা নিন। আপনার যেকোন মানসিক সমস্যায় মায়ার মনোবিদদের পরামর্শ গ্রহণ করুন। আপনার শারিরীক ও মানসিক স্বাস্থ্য সেবায় মায়া ২৪ ঘণ্টা আপনার পাশে রয়েছে।  
তথ্যসুত্রঃ এ পি এ        

Leave a Reply