চূল পরিষ্কার করার সঠিক উপায়

চূল পরিষ্কার করার সঠিক উপায়
তোমার ঘন কালো চুলে হারিয়ে যায় মন,শুনতে কি পাও কান পেতে?হে মোর বনলতা সেন,চুলের ঐ ঝরনাধারায় বন্দী হৃদয়, চায় না ছেড়ে যেতে।
আপনার চূল নিয়ে ও যদি কেউ এমন কবিতা লিখত, কেমন হত ব্যাপারটা? নিশ্চয় অনেক ভাল। কিন্তু প্রতিদিনের দূষণ, আমাদের জীবন যাত্রা এবং খাদ্যাভাসের কারণে প্রায়শই আমাদের চূল তার স্বাভাবিক সৌন্দর্য হারিয়ে ফেলে। 
মায়ার প্লাটফর্মে আমরা প্রায়ই চূলের নানা সমস্যা সংক্রান্ত প্রশ্ন পেয়ে থাকি। চূল সুন্দর ও সমস্যা মুক্ত রাখার অন্যতম উপায় হল ঠিক মত পরিষ্কার করা।চলুন জেনে নেই চূলকে সঠিকভাবে পরিষ্কার করার কিছু উপায়ঃ

১। প্রতিদিন শ্যাম্পু করা থেকে বিরত থাকুনঃ
 প্রতিদিন শ্যাম্পু না করে সপ্তাহে ২-৩ বার করার চেষ্টা করুন।  অতিরিক্ত শ্যাম্পু করলে আপনার মাথার ত্বক থেকে যে প্রাকৃতিক তেল  নিঃসরণ করে এবং যা আপনার চূলের জন্য অত্যন্ত জরুরী তা সরিয়ে ফেলে। যখন এটি হয় আপনার চূল রুক্ষ হয়ে পড়তে পারে অথবা মাঝে মাঝে আপনার ত্বক আরও বেশী তেল উৎপন্ন করে যার ফলে মাথার চূল চিটচিটে হয়ে পড়তে পারে। যদি খুব প্রয়োজন হয় চূল শ্যাম্পু করার তাহলে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন চূল না ভেজানোর ঐ দিন গুলোতে। 
২। সালফেট এবং সিলিকন মুক্ত চূলের প্রসাধনী ব্যবহার করুনঃ
অনেক চূলের প্রসাধনীতে সালফেট এবং সিলিকন যুক্ত থাকে যা চূলের জন্য ক্ষতিকর। এটি চূলের গোঁড়া থেকে প্রাকৃতিক তেল নিঃসরণে বাঁধা সৃষ্টি করে যা আপনার চূলকে রুক্ষ করে ফেলে। এসব সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে  ক্ষতিকর রাসায়নিক মুক্ত এবং চূলের ধরণ বুঝে পণ্য ব্যবহার করুন। 
৩। হাল্কাভাবে শ্যাম্পু করুনঃ শ্যাম্পু আপনার চূলকে ধুলাবালি ও দূষণ মুক্ত রাখে । সঠিকভাবে শ্যাম্পু করার জন্য প্রথমে পুরা চূল ভালভাবে ভিজিয়ে নিন এবং এরপর খুব অল্প পরিমাণে শ্যাম্পু নিয়ে  ফেলা করে আঙ্গুলের সাহায্যে মাথার ত্বক ও চূল পরিষ্কার করুন। সবশেষে অবশ্যই ঠাণ্ডা পানি দিয়ে চূল ধুয়ে ফেলুন। কখনই খুব জোরে ঘষাঘষি করবেন না। খুব আলতো ভাবে আঙ্গুল দিয়ে চিরুনির মত করে পরিষ্কার করুন। চূলে খুশকি থাকলে এন্টি- ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।
৪। কন্ডিশনার ব্যবহার করুনঃ শ্যাম্পু করার পর অবশ্যই কন্ডিশনার ব্যবহার করুণ। কন্ডিশনার অবশ্যই চূলের গোঁড়ায় ব্যবহার না করে আগার দিকে ব্যবহার করুণ এবং লাগানোর পর ২-৩ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিবার শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহার করার প্রয়োজন নাই যদি আপনার চূল এমনিতেই তৈলাক্ত থাকে।  
৫। অবশ্যই ঠান্ডা পানি দিয়ে চূল ধুয়ে ফেলুনঃ
সবসময় ঠান্ডা পানি দিয়ে চূল পরিষ্কার করুণ কারণ উষ্ণ পানি আপনার চূলের স্বাভাবিক মসৃণতা ও ঔজ্জ্বল্যতা কেড়ে নেয়।
৭। সপ্তাহে অন্তত একদিন ডিপ কন্ডিশনিং করার চেষ্টা করুনঃ
প্রতিবার শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনিং না করলে সপ্তাহে একদিন ডিপ কন্ডিশনিং করুন। চূলে কোন কন্ডিশনিং প্যাক লাগিয়ে ১০-১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর চূল ধুয়ে শ্যাম্পু করে আবার আপনার রেগুলার কন্ডিশনার লাগিয়ে ২ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
৮। নিয়মিত চিরুনী পরিষ্কার করুনঃ 
অপরিষ্কার চিরুনি থেকে আপনার চূলে ময়লা ও তেল ঢুকে যায় তাই নিয়মিত উষ্ণ পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে চিরুনি পরিষ্কার করুন এবং চেষ্টা করুন কাঠের চিরুনি ব্যবহার করতে।  
৯। চূল বাতাসে শুকানঃ 
আপনার চূলকে তোয়ালে পেঁচিয়ে কিংবা হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে শুকানো থেকে বিরত থাকুন। তোয়ালে দিয়ে ঘষাঘষি করলে চূলের আগা ফেটে যাওয়া এবং চূল রুক্ষ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই তোয়ালের পরিবর্তে পুরনো টিশার্ট কিংবা সুতি কাপড় ব্যবহার করতে পারেন কারণ এগুলো তোয়ালের তুলনায় নরম। সাধারণ  তোয়ালের পরিবর্তে মাইক্রো ফাইবারের তোয়ালেও ব্যবহার করতে পারেন। 
সুতরাং, সঠিক নিয়মে চূল পরিষ্কার করুন এবং আপনার চূলের যেকোন সমস্যায় মায়া ইন্সটল করে মায়ার বিউটি এক্সপার্টদের পরামর্শ নিন। আপনিও হয়ে যান বনলতা সেন।     
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Categories