মৌসুমি ফ্লু টিকা

যেভাবে বানানো হয়

মৌসুমি ফ্লু টিকা বিভিন্ন ধরনের ফ্লু ভাইরাস দ্বারা বানানো হয়। এসব ভাইরাস ল্যাবরেটরিতে মুরগির ডিমে উৎপাদন করা হয় এবং তারপর ভাইরাসগুলোকে বিশুদ্ধ (মেরে ফেলে) করে টিকা বানানো হয়। ইদানিং ৩ ধরনের  টিকা পাওয়া যায়, যা ভিন্নভাবে বানানো হলেও সমান কার্যকর।

এক ধরনের টিকা বানানো হয় আস্ত ভাইরাসকে জৈব রাসায়নিক দিয়ে বিশুদ্ধ করে (ডিসরাপ্টেড লাইভ ভ্যাকসিন)।

দ্বিতীয় ধরনের টিকা বানানো হয় ফ্লু ভাইরাসের বিভিন্ন উপাংশ সংগ্রহ করে এবং বিশুদ্ধ করে ( সারফেস অ্যান্টিজেন ভ্যাকসিন)।

তৃতীয় ধরনের টিকা বানানো হয় ফ্লু ভাইরাসের খোলস নিয়ে যার ভেতর ভাইরাসের জীনগত কোন পদার্থ থাকেনা।

যেহেতু ফ্লু ভাইরাস সবসময় বদলাতে থাকে, এবং প্রত্যেক শীতকালে ভিন্ন ধরনের ভাইরাসের প্রকোপ থাকে, তাই প্রতি বছর নতুন করে সেই ভাইরাসের জন্য টিকা বানাতে হয়।

যেভাবে ফ্লু টিকা বানানো হয়
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ( ডব্লিও.এইচ.ও.) প্রত্যেক বছর ফেব্রুয়ারিতে ঠিক করে কোন ৩ টি ফ্লু ভাইরাস সেই বছর সবচাইতে বেশী ছড়াতে পারে। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে থাকা তাদের পরিক্ষাগারের নমুনা ও তথ্য বিশ্লেষণ করে এটা নির্ধারণ করা হয়। টিকা উৎপাদন শুরু হয় সেই বছরের মার্চ মাস থেকে।

টিকা যেভাবে আপনার সুরক্ষা দেয়
টিকা দাওয়ার ১০ দিন পর থেকেই আপনার শরীর ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি বানানো তৈরি করা শুরু করে যা আপনাকে ভাইরাসের প্রকোপ থেকে রক্ষা করবে। অ্যান্টিবডি হচ্ছে প্রোটিন যা শরীরের জীবাণু শনাক্ত করতে পারে এবং তা থেকে শরীর কে সুরক্ষা প্রদান করে।

ফ্লু ভাইরাস প্রত্যেক বছর বদলায়, তাই আপনার প্রতি বছর নতুন করে টিকা নিতে হবে সুরক্ষার জন্য।

***মায়ার সাথে থাকুন, সুস্থ থাকুন***

শারীরিক, মানসিক, লাইফস্টাইল বিষয়ক সমস্যায় প্রশ্ন করুন Maya অ্যাপ থেকে।

অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/2WkzaYR

 

Categories