শীতকালে মানসিক স্বাস্থ্য: যত্ন নেওয়ার উপায় - মায়া

শীতকালে মানসিক স্বাস্থ্য: যত্ন নেওয়ার উপায়

ডিসেম্বর মাস এবং প্রচণ্ড শীত কড়া নাড়ছে আমাদের দুয়ারে। এই শীতে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নানাবিধ সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় আমাদের।

বিশেষত শিশু, বৃদ্ধ এবং যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তারা শীতকালে ঘন ঘন অসুস্থ হয়ে পড়ে।

শীতে সর্দি, কাশি, ফ্লু ,শুষ্ক ত্বক ও চুলের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের ও অবনতি হতে পারে কারও কারও ক্ষেত্রে।

শীতকালে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার মধ্যে অন্যতম হল- সিজনাল অ্যাফেক্টিভ ডিজওর্ডার বা সংক্ষেপে (এস এ ডি)।

এই এস এ ডি (SAD) সংক্রান্ত বিস্তারিত জানতে পুরো লেখাটি পড়ুন।

শীতকালে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা

শীতে মানসিক সমস্যাগুলোর মধ্যে অন্যতম হল এই এস এ ডি (SAD) বা seasonal affective disorder।

এসএডি হ’ল হতাশার এক রূপ যা ঋতু পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত, লক্ষণগুলি প্রতি বছরের একই সময়ে (নভেম্বর থেকে মার্চ) শুরু হয় এবং শেষ হয়।

উদ্বেগ, দুঃখ, বিরক্তি, সামাজিক প্রত্যাহার, ক্লান্তি এবং মনোযোগের অভাব সবগুলিই এসএডি লক্ষণ।

এসএডি-র সঠিক কারণ জানা যায়নি তবে কিছু বিজ্ঞানী মনে করেন যে নির্দিষ্ট হরমোনগুলি বছরের নির্দিষ্ট সময়ে বিশেষত শীতকালে মেজাজ সম্পর্কিত পরিবর্তনগুলি ট্রিগার করে।

শীতকালে সূর্যের আলো কম থাকে বা মানুষ ঘর থেকে কম বাইরে বের হয়।

সূর্যের আলোর অভাবে মস্তিষ্কের রাসায়নিক কমে যাওয়ায় নিউরোট্রান্সমিটার নামক অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে।

এই অবস্থায় মস্তিষ্কের রাসায়নিকগুলির ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি করতে পারে যা আপনার মেজাজকে প্রভাবিত করে।

সেরাটোনিন এবং এস এ ডি এর সম্পর্ক

কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক এক গবেষণার সময় বিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছিলেন যে-

সেরোটোনিন ট্রান্সপোর্টার বা এসইআরটি, প্রোটিনের কারণে এস এ ডি হতে পারে।

সেরোটোনিন হ’ল মেজাজের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য দায়ী একটি মস্তিষ্কের রাসায়নিক।

বিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছেন যে শীতকালে, এসএ ডি তে ভোগা অংশগ্রহণকারীদের গ্রীষ্মের তুলনায় ৫% বেশি এসইআরটি ছিল, যার অর্থ শীতকালে তাদের মস্তিষ্ক থেকে আরও সেরোটোনিন কমে গিয়েছিল, যা হতাশার লক্ষণগুলির কারণ হতে পারে।

শীতকালে এস এ ডি প্রতিরোধে করণীয়

শীতের সময়, এসএ ডি বিকাশের সম্ভাবনা এড়াতে নিজের অতিরিক্ত যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

এস এ ডি দূরে রাখতে সহায়তা করতে আপনি করতে পারেন এমন কিছু পরামর্শ হল:

  • যখনই সম্ভব সূর্যের আলোতে যান- বাইরে বা জানালা দিয়ে আসা সূর্যের আলো আপনার দেহের সেরোটোনিন স্তরকে বাড়িয়ে তুলবে যা আপনার মেজাজকে ভারসাম্যপূর্ণ করে। সূর্যালোক ঘরকে আলোকিত করে আপনাকে আরও জাগ্রত রাখতে সহায়তা করবে।
  • দৈনন্দিন রুটিন থেকে ব্যায়াম বাদ দিবেন না- আপনার প্রতিদিনের রুটিন থেকে ব্যায়াম বাদ দিবেন না। শীতল আবহাওয়া অনেক মানুষকে ঘরের ভিতরে থাকতে বাধ্য করে এবং এতে ব্যায়াম না করার অজুহাত দেখা দিতে পারে। সপ্তাহে কয়েকবার অনুশীলন করার মাধ্যমে আপনি এন্ডোরফিনগুলি মুক্তি দিতে সহায়তা করবেন, এটি এমন একটি হরমোন যা আপনাকে প্রাকৃতিক ভাবে ভালোবোধ করবেন।ফলস্বরূপ, আপনাকে আরও সুখী মেজাজী এবং শক্তিশালী করে তোলে।
  • পর্যাপ্ত ঘুমান- আপনার মন এবং শরীরকে নিয়মিত রাখতে রাতে সাত থেকে আট ঘন্টা ঘুমানো দরকার।
  • প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নিন- আপনি যদি আপনার মেজাজ, ক্ষুধা, ঘুমের অভ্যাস বা শক্তির মাত্রায় পরিবর্তনগুলি অনুভব করেন, আপনার এসএডি আছে কিনা বা অন্য কিছু চলছে কিনা তা নির্ধারণ করার জন্য একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

শীতকালে মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নিন। যে কোন সমস্যায় মায়ার মনোবিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

রেফারেন্স

Sachdeva, J. (2014, December 4). How Winter Affects Your Mental Health. Www.Uchealth.Com. https://www.uchealth.com/articles/how-winter-affects-your-mental-health

Medical News Today. (2014, October). Seasonal depression “caused by increased levels of serotonin transporter protein.” https://www.medicalnewstoday.com/articles/284195

Leave a Reply

Categories